গুগল প্লাস টিউটোরিয়ালঃ কি, কেন এবং কিভাবে?

বিশ্বের প্রযুক্তি উন্নত প্রায় ৪০টি দেশে এখন গুগল প্লাসের জয়জয়কার ধ্বনি উঠছে। তবে, বাংলাদেশেও কোন অংশে পিছিয়ে নেই। সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশের অনেকেই ফেসবুকের পাশাপাশি গুগল প্লাসকে নতুন বন্ধুত্বের মিলন কেন্দ্র হিসেবে গ্রহণ করেছেন। তবুও বলা চলে, অন্যান্য দেশের তুলনায় আমাদের দেশে ব্যবহারকারীর সংখ্যা তুলনামূলক অনেক কম! তবে, ধারনা করা যাচ্ছে হয়তো আর কিছু দিন পর ফেসবুককে কাটিয়ে গুগল প্লাসে বাংলা ভাষাভাষীদের প্রতিধ্বনি শুরু হবে।

গুগল প্লাস, প্রযুক্তি বিশ্বের নতুন একটি অধ্যায় বলা যায়। বাংলাদেশীদের কাছে এটির জন্যপ্রিয়তা না পাওয়ার পেছনে বলা চলে এ সম্পর্কে তেমন ধারনা না থাকা বা জি+ চালাতে আমাদের ইন্টারনেট গতির সাথে মিল না থাকা। যদিও পোষ্টের বলে ইন্টারনেট গতি বাড়ানো সম্ভব না, তাই কিভাবে জি+ কে ব্যবহার করবেন তার ধারাবাহিক টিউটোরিয়াল আজ থেকে লিখা শুরু করলাম।

গুগল প্লাসঃ

Google+ কখনও গুগল প্লাস বা সর্টকাট জি+ নামে পরিচিত। স্লোগান "Real-life sharing rethought for the web." এটি গুগল ইনক এর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত ফেসবুকের মতই তবে আলাদা একটি নতুন সামাজিক নেটওয়ার্ক সেবাদানকারী সাইট

গুগল তাদের এই সামাজিক যোগাযোগের সাইটটি গত বছর(২০১১) ২৮শে জুন ইন্টারনেট বিশ্বে পরীক্ষামূলক ভাবে প্রকাশ করে। তখন ইনভাইটেশনের মাধ্যমে সল্প সংখ্যক দেশ এবং জনসাধারনদের জন্যই উম্মুক্ত ছিল। পরবর্তীতে ২০শে সেপ্টেম্বর ২০১১ এটি ১৮ বছরের উপরের সকল দেশের মানুষদের জন্য উম্মুক্ত করে দেয়া হয়।

গুগল প্লাস, গুগলের তাদের অন্যান্য সেবাগুলো গুগল প্রোফাইল, গুগল বাজ এর মত করে নতুন সার্ভিস Circles, Hangouts and Sparks ইত্যাদি প্রকাশ করে। প্রকাশের কিছুদিন পর থেকেই গুগল প্লাসের মোবাইল সংস্করণও প্রকাশ করে। দ্যা নিউ ইয়োর্ক টামইস থেকে দাবি করা হয় গুগল প্লাস-ই বর্তমান বিশ্বে একমাত্র সামাজিক যোগাযোগের ওয়েব সাইট যেটা রেব হবার অল্প কিছু দিনের মধ্যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে উপনীত হয়। এমনকি যেখানে ফেসবুকের চালুর সময় অনেক দূর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। ওরকুট এর মত সাইট ২০০৪ এ রিলিজ পেয়ে কিন্তু এখন গুগলের তত্ত্বাবধানেই চলছে। এর থেকে বুঝা যায় গুগলমত ইন্টারনেট বিশ্ব একসময় ফেসবুক-কে হার মানাবে তা এক রকম নিশ্চিত, বাকীটা সময়ের সাথে চোখ রাখতে হবে!

এনসেস্ট্রী.কম এর প্রতিষ্ঠাতা Paul B. Allen আন-অফিসিয়ালী একটি জরিপে জানান, "গত বছর ডিসেম্বর পর্যন্ত গুগল+ এর ব্যবহার সংখ্যা ছিল প্রায় ৬২ লক্ষ!! এবং তিনি আশা করছেন এত দ্রুত গ্রোথ প্রাপ্ত একটি সাইট এবছর শেষ না হতেই ৪ কোটি ব্যবহারকারী পেতে সক্ষম"!

আজ এই পর্যন্ত গুগল প্লাস নিয়ে আরো বিস্তারিত ধারাবাহিক টিউটোরিয়াল ভাবে নিয়ে আসছি খুব শীঘ্রই।

সেই পর্যন্ত সবাই ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন! 🙂

1 thought on “গুগল প্লাস টিউটোরিয়ালঃ কি, কেন এবং কিভাবে?”

Leave a Comment