সামাজিক নেটওয়ার্ক কখন স্প্যাম হিসেবে পরিগনিত হবে?

আপনি যখন আপনার পোষ্ট বা পোষ্টের লিংক সামাজিক নেটওয়ার্কে প্রকাশ করেন সেটা কি স্প্যামিং? সামাজিক নেটওয়াকর্কে কি আপনি সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনে বা সাইটের ট্রাফিক বৃদ্ধিতে ব্যবহার করেন? বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ও ফোরামে আপনি কি আপনার ওয়েবসাইটের লিংক প্রকাম করেন যাতে রোকজন আপনার সাইটে ছুটে আসে? আপনি কি কোন ইমেইল মার্কেটিং সফটওয়ার ব্যবহার করে মেইল করেন? এটা কি মার্কেটিং না স্প্যামিং? মার্কেটিং ও স্প্যামিং এর মধ্যে সীমারেখা কি?

এক.

ধরুন, একজন লোক টিউটরিয়ালবিডিতে এসে রেজিস্ট্রেশন করলো ও সে প্রথমে একটি পোষ্ট করলো তার ওয়েবসাইটের রিভিউ লিখে। লোকটি সম্পর্কে আমার ধারনা হবে সে একজন স্প্যামার তার কাজ হলো বিভিন্ন ব্লগে ও ফোরামে গিয়ে রিভিও লেখা ও

লিংক বাড়ানো পরে তাকে আর খুজে পাওয়া যাবে না (আর অধিকাংশ সময় তা-ই হয়) । কিন্তু এখানের নিয়মত লেখকের কেউ যদি একটি নতুন ওয়েবসাইট প্রকাশ করে ও তা তার পাঠকদের জানায় তখন মনে হবে যে সে তার সম্পর্কে সবাইকে জানাচ্ছে। কোন একটি ভাল বা খারাপ খবর যেমন আমরা একে আন্যকে জানাই ঠিক তেমনি এক জন অরেক জনের সাথে নিজের নতুন উদ্যোগটি জানাচ্ছে।

দুই.

মার্কেটিং করার সময় নিজে একটি পোষ্ট করে অনেক সময় নিজেই ডিগ বা আন্যান্য বুকমার্ক সার্ভিসের নিজের লিংকটি বুকমার্ক করে রাখে। আর এ কাজটি করা কি মার্কেটিং না স্প্যামিং? আপনার তো কোন প্রয়োজন নেই আপনার নিজের লেখা বুকমার্ক করে রাখার তার পরও করছেন...। যেহেতু এটা অন্যকে বিরক্ত করা হচ্ছে না আর সার্চ ইঞ্জিনে নিজের অবস্থানের জন্য আপনার বুকমার্ক করার প্রয়োজন আছে।

তিন.

চার/পাঁচ বছর আগের কথা, ইন্টারনেট শিখছি মাত্র।  আমি আলীবাবা ডটকমে রেজিষ্ট্রেশন করেছিলাম। রেজিষ্ট্রেশনের সময় হয়তো ই-মেইল পেতে আগ্রহী এ জাতীয় কোন কিছুতে ক্লিক করেছিলাম। আর প্রতিদিন আমার মেইল ৩-৪ টি করে বিভিন্ন মেইল আসতো। আমি মেইল চেক করতাম আর ডিলিট করতাম। এরকম অনেকগুলো ওয়েব সাইটে হরদম রেজিষ্ট্রেশন করতে করতে এবং মেইল ডিলিট করতে করতে আমি অতিষ্ট হয়ে গিয়েছিলাম।আমি ওদেরকে স্প্যামার বলি।সামাজিক নেটওয়ার্ক কখন স্প্যাম হিসেবে পরিগনিত হবে?

আমি কি তাদের স্প্যামার বলতে পারি? টিউটরিয়ালবিডিতেও তো ই-মেইল সাবক্রাইবের ব্যবস্থা আছে। যারা ই-মেইল সাবক্রাইব করবে তারা নতুন নতুন টিউটরিয়ালগুলো মেইলেই পেয়ে যাবে। তাহলে কি টিউটরিয়ালবিডি স্প্যামিং করছে? একটা কথা- ই-মেইল সাবক্রাইবে ও অবশ্যই আনসাবক্রাইবের ব্যবস্থা রাখা দরকার। যাতে করে কেউ ই-মেইল পেতে না চাইলে আন সাবক্রাইব করতে পারে।

চার.

টুইটারে সিডিউল টুইটের মাধ্যমে আপনি ঘুমিয়ে ঘুমিয়েও টুইটার আপডেট দিতে পারবেন। আপনার লিংকগুলো আপানর কথাগুলো বেশ কিছু সার্ভিসের সাথে যুক্ত হয়ে এরকম কাজ করা সম্ভব। ফেসবুকেও বেশ কিছু এপ্লিকেশন আছে যেগুলো আপনার বন্ধুদের ওয়ালে আপনাকে না জানিয়েই পোষ্ট মেরে দিতে পারে। আপনার বন্ধু হয়তো মনে করলো আপনি দিয়েছেন।

মার্কেটিং এর বাড়াবাড়িগুলো যখন আপনার কাছে বিরক্ত মনে হবে তখনই আপনার কাছে সেটা স্প্যাম আর যখন সেটা আপনার প্রয়োজনের মধ্যে পরে তখন সেটা আপনার কাছে স্প্যাম না।

আপনি কি মনে করেন?

স্প্যামিং এর বেপারে আপনার আভিমত কি? আপনি কি ওয়েব মার্কেটিংকেই স্প্যামিং এর প্রথম ধাপ মনে করেন?

আরও পড়ুন:

5 thoughts on “সামাজিক নেটওয়ার্ক কখন স্প্যাম হিসেবে পরিগনিত হবে?”

  1. মেঘমালা

    মার্কেটিং এর বাড়াবাড়িগুলো যখন আমার আপনার সকলের কাছে বিরক্তিকর মনে হব তখনই আমি তাকে স্প্যামিং মনে করব।ওয়েব মার্কেটিংকে স্প্যামিং এর প্রথম ধাপ মনে করিনা।এর অপব্যবহারকে
    মনে করা যেতে পারে।
    ই-মেইল সাবক্রাইবে অবশ্যই আনসাবক্রাইবের ব্যবস্থা রাখা দরকার।তা না হলে সে সাইটকে স্প্যামার হিসেবে আখ্যায়িত করা যাবে।
    অফটপিকঃ
    ভাইয়া ইদানীং আপনাকে বানানের প্রতি একটু উদাসীন মনে হচ্ছে।মনে হচছে খুব ব্যস্ততার মাঝে লেখালেখি করছেন।

    1. আমি বুঝলাম না, কেন হলো। মতামত সম্পাদনা করার ব্যবস্থা আছে প্রয়োজনে সম্পাদনা করা যেতে পারে। আপনার আগের মতামতটি সম্পাদন করলাম। ধন্যবাদ, মেঘমালা।

  2. একটা কথা বলি- আপনি যেটা স্প্যাম বলছেন সেটা অন্যের কাছে স্প্যাম নাও হতে পারে। বাড়ারাড়ির বেপারটাও তো আপেক্ষিক কি বলেন?

    হা, আমি আগে থেকেই বানানে দুর্বল। কোন পোষ্ট রিভাইজ না করে পোষ্ট প্রকাশ করলে এই সমস্যা হয়।

    থিমটি হালকা করার উদ্দেশ্যে থিসিস থিমটাকেই বেছে নিলাম। আপনার কেমন মনে হচ্ছে?

    ধন্যবাদ, মতামত দেওয়ার জন্য।

Leave a Comment