ওয়েব হোস্টিং কেনার আগে যে সব বিষয় ভেবে দেখবেন

প্রথম দিকে নিজের একটি ওয়েবসাইট বানানোর আগে বেশিরভাগ লোকই একটু উত্তেজিত থাকে এবং হোস্টিং সম্পর্কে অনেকগুলো বিষয়ই না জেনে হোস্টিং কিনে ফেলে। পরে এটি থেকে নিজের মনের মতো সুবিধা না পেলে দু:খ প্রকাশ করা ছাড়া কিছু করার থাকে না। তাই যে সব বিষয় সম্পর্কে অবগত না হয়ে হোস্টিং কেনা উচিত না বলে আমি মনে করছি তা আগেই জেনে নিন। কয়েকদিন আগে আমি ভিপিএস এর উপর তুলনামূলক আলোচনা করেছিলাম, সেখানে এ বিষয়ে কিছুটা ধারনা লাভ করতে পারেন।

তাহলে জেনে নেই কি কি বিষয়ের উপর ভিত্তি করে আপনার হোস্টিং কিনবেন:

টাকা

প্রত্যেকেরই একটা আনুমানিক বাজেট থাকে যার মধ্যে সে হোস্টিং কিনবে। একই সাথে ভাল মানের এবং কম টাকার মধ্যে কিনতে হলে অবশ্যই আপনাকে বাজার ঘুরে দেখতে হবে। এ বেপারে খুবই সুন্দর একটি ইন্টারফেস পাবেন আপনি হোস্টমন্ক এ। এখানে আপনি অনেক গুলো হোস্টিং প্রতিষ্ঠান ও তাদের সার্ভিসের সম্পর্কে জানতে পারবেন। আপনার চাহিদার সাথে মিলিয়ে নিতে পারবেন হোস্টিং প্রতিষ্ঠানের ধরন।

প্রতিষ্ঠানের সামগ্রিক অবস্থা

আপনার ওয়েবসাইট যে প্রতিষ্ঠানের সার্ভারে রাখবেন তার ব্যবসা সম্পর্কে জেনে নিন। আনলাইনে সার্চ দিলে কোন হোস্টিং কোম্পানী সম্পর্কে অনেক তথ্যই বেরিয়ে আসবে। বিভিন্ন ফোরাম পোস্টগুলো দেখতে পারেন। একটি বড় প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে হোস্টিং কেনাটাই বেশি ভাল।

বাধ্যবাধকতা

হোস্টিং প্লানগুলোর মধ্যে কোন লিমিটেশন থাকলে সেটা অনেক সময় ভালভাবে উল্লেখ করা থাকে না। তাই প্লানগুলোর তুলনা করে আপনার চাহিদার সাথে বেপারগুলো মিলে কিনা তা দেখে নিন। আপনি যদি এএসপি ডট নেটে সাইট বানাতে চান আর যদি লিনাক্স হোস্টিং বানাতে চান তাহলে তো চলবে না। এ জন্য প্রয়োজন হবে উইনডোজ প্লান। তাই জেনে নিন কি কি লিমিটেশন থাকবে আপনার সার্ভারে।

সাপোর্ট

আজকের দুনিয়ায় সাপোর্ট একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনার সার্ভার যদি কখনো ডাউন হয় আর যদি তা জানাতে এবং উত্তর পেতে কয়েক দিন লেগে যায় তাহলে লক্ষ ভিজিটর হারাতে পারেন। আর যদি আপনি রিসেলার ক্লাইন্ট হোন তবে তো মহা বিপদে পড়বেন। আপনার ক্লাইন্টকে কোন উত্তর দেয়ার মতো কিছু থাকবে না। তাই তাদের সাথে আপনার যোগাযোগের বেপারটা দেখ নিন।

আনলিমিটেডের ফাঁদ

আনলিমিটেড বলে কোন কথা নেই তা আমি একটি মতামতে বলেছিলাম। আর এ সম্পর্কে হাসান ভাইয়ের উক্তিটি যথেষ্ঠ।
"এখন অনেক প্রতিষ্ঠানই ক্রেতাকে আনলিমিটেড স্পেস, আনলিমিটেড ব্যান্ডউইড, আনলিমিটেড ইমেইল ইত্যাদি সুবিধার টোঁপ দেয়। বড় প্রতিষ্ঠান না হলে কারোও পক্ষেই আনলিমিটেডের সুবিধা দেয়া সম্ভব নয়। বরং প্রতিষ্ঠানগুলো আনলিমিটেডের লোভ দেখিয়ে ধারনক্ষমতার অতিরিক্ত কাষ্টমার নিয়ে সার্ভার স্লো করে ফেলে। তাই দেখে শুনে কেবল প্রতিষ্ঠিত কোম্পানিগুলোর আনলিমিটেডের অফারে পা দিন।"

ই-মেইল ফিচার ও ডোমেইন ফিচার

আপনি কতটা ই-মেইল সেটআপ করতে পারবেন এবং কতটা ডোমেইন/সাব-ডোমেইন ব্যবহার করতে পারবেন তা অবশ্যই জেনে নিবেন। আপনার আজ হয়তো একটি ওয়েব সাইট দরকার হলো কাল আরেকটা লাগতেই পারে তাই যে সব প্ল্যান একটি মাত্র ডোমেইন হোস্ট করতে দেয় সেই প্ল্যান না কেনাই ভাল।

কন্ট্রোল প্যানেল

আপনি যদি এফটিপি সফ্টওয়্যার ব্যবহার করতে অভ্যস্ত না হোন তবে সি প্যানেল বা ইউজার ইন্টারফেস কি দিবে তা জেনে নিন। আপনি হোস্টিং রিসেল করতে চাইলে একাধির ইউজার বানানো এবং তাদের জন্য রিসোর্স (স্পেস,ব্যান্ডউইথ) বরাদ্দের বেপারটি জেনে নিন।

আপগ্রেড

একটা সময় আপনার বর্তমান প্লানটাকে একটু বাড়িয়ে নিতে হতে পারে, সেই সময় যদি সয়ংক্রিয়ভাবে তারা আপনার হোস্টিং আপগ্রেড করে দিতে পারে সেটা আপনার জন্য অনেক সুবিধাজনক হবে। সাধারনত ভাল মানের সকল সারভার কোম্পানী এরকম পদ্ধতি রেখে থাকে।

আরও জানুন

১. কোন ওয়েবসাইট কোন সারভারে হোস্টিং করা হয়েছে তা জানতে পারেন খব সহজেই। http://www.whoishostingthis.com এ সার্চ দিলেই বেড়িয়ে যাবে ।
২. আজকের দিনে ক্লাউড হোস্টিং এর বেশ নাম। এ সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন।
৩. হোস্টিং সম্পর্কিত বাংলা ভাষায় আরও পোস্ট (এক দুই )

আমার অন্যান্য লেখা

১০ টি ওয়েব এপ্লিকেশন যা হতে পারে দৈনন্দিন কাজের সঙ্গী

ফ্রিল্যান্সারের জন্য অত্যাবশ্যকীয় ৫টি বিষয়

ওয়েব জগতে নতুন উদ্যোগ নেয়ার বেপারে কিছু তথ্যপূর্ণ উপদেশ

সফলতা পেতে ফ্রিল্যান্সিং চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা

মজার ও প্রয়োজনীয় ৭টি ফেইসবুক স্ট্যাটাস টিপস

কিছু দিন পরে হোস্টিং সম্পর্কে আরো কিছু লেখালেখি করতে পারি । সাথে থাকুন। ভাল থাকুন।

Leave a Comment