ডায়নাসোর এর ইতিহাস

ডায়নসর একটি বিলুপ্তপ্রাই প্রাণী ।যা নিয়ে এ পর্যন্ত অনেক গবেষনা হয়েছে ।এর উৎপত্তি সম্পর্কে এখন পর্যন্ত নিশ্চিত কনো ধারনা পাওয়া না গেলেও জানা গেছে এরা ২৪৩-২৩৩.২৩ মিলিয়ন বছর আগে ট্রায়াসিক সময় কালে প্রথম সৃষ্টি হয় ।এবং এরা ২০১.৩ মিলিয়ন বছর আগে ট্রায়াসিক (Triassic–Jurassic)জুরাসিক এবং ক্রিটেসিয়াস সময়কালে এ পৃথিবীতে ঘোটে যাওয়া প্রাকৃতিক দুর্যোগে পুর দায়নাস্র প্রজাতি বিলুপ্ত হয়ে যায় ।জীবাশ্ম রেকর্ডটি প্রমাণ করে যে পাখিরা আধুনিক পালকযুক্ত ডাইনোসর যা ক্রেটিসিয়াস – প্যালিয়োজিন বিলুপ্তির ঘটনায় বেঁচে থাকার জন্য পাখিই একমাত্র ডাইনোসর বংশ ছিল।

ডায়নাস্র অগণিত প্রজাতি হওয়া সত্তেও এদের ২ ধরনের চিহ্নিত করা হতো যেগুল পাখির মতো ঊরতে পারে তাদের এভিয়ান ডায়নাস্র ও বাকি সকল প্রজাতিকে অ-অ্যাভিয়ান ডায়নাসর বলা হতো ।


ডায়নোসরগুলি হ'ল ট্যাকোনমিক, মরফোলজিকাল এবং ইকোলজিকাল স্ট্যান্ডপয়েন্টগুলি প্রাণীগুলির একটি বিচিত্র রূপ ।
এভিয়ান বা পাখি প্রযাতি ছিল ১০০০০ এর ও বেশি ।এবং অ-অ্যাভিয়ান দের ভিতর জলয ডায়নাস্র ছিল ৫০০+ ও বাকি অন্যান্যরা ছিল ১০০০+ । এরা কিছু ছিল নিরামিষাশী/গাছ-পালাখেক, অন্যগুলি মাংসাশী। গবেষণার মাধ্যমে জানা যায় যে সমস্ত ডাইনোসর ডিম পাড়েছিল; এবং সেই নীড়-বিল্ডিংটি অ্যাভিয়ান এবং অ-অ্যাভিয়ান উভয়ই ডাইনোসর এ বৈশিষ্টের ছিল । ডাইনোসরগুলি মূলত দ্বিপদী ছিল, বহু বিলুপ্ত গোষ্ঠীর মধ্যে এরা চতুর্ভুজ প্রজাতির ছিল । এদের শিং বা ক্রেস্টের মতো এবং কিছু বিলুপ্তপ্রায় গোষ্ঠী হাড়ের আর্মার এবং স্পাইনগুলির মতো কঙ্কালের পরিবর্তনগুলি অনেক রকম বৈশিষ্ট ছিল ।

যদিও ডাইনোসরগুলির আধুনিক সময়ের বেঁচে থাকা এভিয়ান বংশ (পাখি) কারণে সাধারণত ছোট থাকে, অনেক প্রাগৈতিহাসিক ডাইনোসর (অ-অ্যাভিয়ান এবং এভিয়ান) বড় দেহযুক্ত ছিল — বৃহত্তম সওরোপোড ডাইনোসরগুলির দৈর্ঘ্য ৩৯.৭-এর দৈর্ঘ্যে পৌঁছেছিল বলে অনুমান করা হয় মিটার (১৩০ ফুট) এবং ১৮ মিটার (৫৯ ফুট) এর উচ্চতা এবং সর্বকালের বৃহত্তম ভূমি প্রাণী ছিল। তবুও, ধারণা করা হয়নি যে নন-এভিয়ান ডাইনোসরগুলি সমানভাবে বিশাল ছিল, সংরক্ষণ পক্ষপাতের ভিত্তিতে একটি ভুল ধারণা যা বড়, শক্ত হাড়গুলি জীবাশ্ম না হওয়া পর্যন্ত স্থায়ী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। অনেকগুলি ডাইনোসর বেশ ছোট ছিল: উদাহরণস্বরূপ, জিক্সিয়ানিকাসটি প্রায় ৫০ সেন্টিমিটার (২০ ইঞ্চি) দীর্ঘ ছিল। ডাইন্নাসস্রর এর জিবাশ্ম প্রথম ১৯ শতকের গোরার দিকে পাওয়া যায় । তবে মাউন্ট করা জীবাশ্ম ডাইনোসর কঙ্কাল বিশ্বজুড়ে যাদুঘরগুলিতে প্রধান আকর্ষণ ছিল এবং ডাইনোসর বিশ্ব সংস্কৃতির একটি স্থায়ী অংশে পরিণত হয়েছে। ১৮৯৭ এর পরে, ডাইনোসর জীবাশ্মের অনুসন্ধান অ্যান্টার্কটিকা সহ প্রতিটি মহাদেশে এর সম্পকে ধারনা দেওয়া হয়েছিল ।

১৯৮৬ সালে জেমস রস দ্বীপে পাওয়া গিয়েছিল প্রথম অ্যান্টার্কটিক ডাইনোসরকে । মার্শ ডায়নোসর ৮৬টি নতুন প্রজাতি আবিষ্কার করেছিলেন এবং কোপ ৫৬ টি আবিষ্কার করেছিলেন, মোট ১৪২ টি নতুন প্রজাতি ছিল। কোপের সংগ্রহটি এখন আমেরিকান যাদুঘরের প্রাকৃতিক ইতিহাসে রয়েছে, আর মার্শ ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাকৃতিক ইতিহাসের পিবডি মিউজিয়ামে প্রদর্শিত হচ্ছে। ডায়নোসর গবেষণার ক্ষেত্রটি ক্রিয়াকলাপে বৃদ্ধি পেয়েছিল যা শুরু হয়েছিল ১৯৭০ এবং এখনও চলছে ।


বর্তমান ডাইনোসর "হট স্পট" এর মধ্যে দক্ষিণ দক্ষিণ আমেরিকা (বিশেষত আর্জেন্টিনা) এবং চীন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ডাইনোসর শয্যাগুলির অনন্য ভূতত্ত্বের কারণে চীন বিশেষত বহু ব্যতিক্রমী ডানাযুক্ত ডাইনোসর নমুনাগুলি তৈরি করেছে, পাশাপাশি জীবাশ্মের জন্য উপযুক্ত একটি প্রাচীন শুষ্ক জলবায়ু রয়েছে ।

Leave a Comment