কোন ধরনের ওয়েবসাইটের জন্য কোন ধরনের হোস্টিং সারভার প্রয়োজন

একজন ব্যক্তি তার ওয়েবসাইট বিশ্ব দরবারে প্রথম উম্মোচনের সময় এত বেশি আবেগপ্রবণ থাকে যে ওয়েব হোস্টিং এর বিষয়টি তার ভাবনার বাইরের জিনিসে পরিনত হয়। এমন কি সুন্দর একটি ডোমেইন নেম বাছাই করার জন্যই দুই/একদিন সময় চিন্তা করে সময় অপচয় করতে নারাজ। অথচ একটি প্রোজেক্টের শুরুতে এই বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যে ওয়েবসারভারে আপনার ওয়েবসাইটটি থাকবে সেটি কি আপনার প্রোজেক্টের জন্য উপযোগী কিনা তা প্রথমে ভেবে দেখতে হবে।

অধিকাংশ সময়ই টিউটোহোস্ট থেকে ওয়েব হোস্টিং নেওয়ার সময় ক্লাইন্ট শুধু বলে এত জিবি হোস্টিং এবং এত জিবি ব্যান্ডউইথের সারভার লাগবে। এবং আমি তাদের প্রোজেক্টের ব্যাপারে জিজ্ঞাস করি। কারন তার জন্য উপযোগী সারভার কি হবে তা আমাকে জানতে হবে এবং সেই মানের সারভার দিতে হবে। কিন্তু অধিকাংশেরই ধারনা স্পেস আর ব্যান্ডউইথই হোস্টিং সারভারের মানের নিয়ামক! এ ব্যাপারে কিছু কথা না বললেই নয়। এমন কি একাধিক পোস্টে এ কথা আমাকে বলতে হয়েছে এবং ভবিষ্যতেও বলতে হবে।

(১) আপনি যদি একটি নতুন কম্পিউটার কিনতে যান তাহলে তার মানের ব্যাপারটি দেখেন। কি কি বিষয় সেই কম্পিউটারের দামের নিয়ামক হিসেবে কাজ করে? কম্পিউটারের মাদারবোর্ড, প্রসেসর, র‌্যাম, হার্ডডিস্ক এই বিষয়গুলো। বলুন তো এই হার্ডওয়্যারের মধ্যে সবচেয়ে দামি জিনিস কোনটি? - অবশ্যই প্রসেসর। প্রসেসরই কম্পিউটারের মানটির নিয়ামক হিসেবে কাজ করে। আর কম্পিউটারের গতির ক্ষেত্রে ভাল মানের র‌্যাম থাকলে অনেক বড় ফাইল খুব অল্প সময়ে খোলা যায় এবং তার প্রসেস করা সম্ভব হয়।

(২) আপনি যে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তার দামের ক্ষেত্রে কোন বিষয়টি নির্ভর করে? ব্যবহৃত ব্যান্ডউইথ এবং ইন্টারনেটের গতি। সম পরিমান ব্যান্ডউইথ ব্যবহার করার পরেও বেশি স্পিডের লাইনের দাম বেশি।

এটা সবাই ভুলে যায় যে ওয়েবসারভারও একটি কম্পিউটার বা কম্পিউটার সমস্টি, আর তাদের সাথে যুক্ত থাকে উচ্চ মান সম্পন্ন ইন্টারনেট সংযোগ। আপনার ওয়েবসাইট যখন কোন তথ্য চাইবে তখন সেই কম্পিউটারের কনফিগারেশনের উপরেই নির্ভর করবে কত দ্রুত আপনি তথ্যগুলো পাবেন। আর সারভারটি নিম্ন মানের হলে ধীরে ধীরে তথ্য পাবেন, উচ্চ মানের হলে দ্রুতগতিতে তথ্য পাবেন। অনেক বেশি স্পেস ও ব্যান্ডউইথ দেওয়াটা যতটা না সহজ তার চেয়ে হাজার গুণ কঠিন দ্রুতগতির এবং ভাল আপটাইমের সারভার প্রদান করা।

নিজের তালিকাটি দেখলে বুঝতে আরো সুবিধা হবে-

এখানে দেখা যাচ্ছে সারভারের দামের ক্ষেত্রে স্পেস এবং ব্যান্ডউইথের ভুমিকার চেয়ে সারভারের প্রসেসর ও র‌্যামের ভূমিকা বেশি। ১০ টেরাবাইট ব্যান্ডউইথের কোন একটি সারভারের মাসিক খরচ ৮০ ডলার, আবার কোনটির খরচ ৩৭০ ডলার।

এতক্ষন যা বললাম তা হলো ওয়েবসারভারের কনফিগারেরশন ও দামের ক্ষেত্রে এর ভূমিকা বিষয়ক কথা। এখন শুরু করছি- মূল আলোচনায়- আপনার ওয়েবসাইটটি কোন ধরনের হলে আপনি কোন ধারনের সারভার নিবেন?

স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট

শুধু এইচটিএমএল, সিএসএস , জাভাস্ক্রিপ্ট দিয়ে তৈরী ওয়েবসাইটগুলোর জন্য এপাচি ইনস্টল করা নাই এমন সারভার থেকে দেখতে পারবেন। এবং যেহেতু ডাটাগুলো এইচটিএমএল কোড আকারে আছে তাই ডাটাবেজেরও দরকার হয় না। ভাল ইন্টারনেট গতির এবং দ্রুত রেসপন্স করতে পারে এমন সারভারই যথেষ্ঠ।

এএসপি ডটনেট দিয়ে ওয়েবসাইট বানানো হলে

এএসপি ডট নেট উইনডোজের একটি জনপ্রিয় সারভার সাইট স্ক্রিপ্টিং ল্যাংগুয়েজ। অনেক প্রতিষ্ঠানই ভিজুয়াল বেসিক বা ভিজুয়াল বেসিক ডটনেট প্লাটফর্মের ডেস্কটপ এপ্লিকেশনের অনেকগুলোই এএসপি ডটনেট প্লাটফর্মের ওয়েব সফটওয়্যারে ডিজাইন করেছে। কারন, ওয়েব ইন্টারফেসে কনভার্ট করতে খুব সহজ সমাধান পেয়েছেন এবং একই এসকিউএল ডাটাবেজ রেখে তারা কাজটি করতে পেরেছেন। বাংলাদেশে অনেক প্রতিষ্ঠানের এপ্লিকেশন ওয়েবসাইটই এএসপি ডটনেটে ডিজাইন করা। এই সফটওয়্যার হোস্ট করতে হলে আপনাকে উইনডোজ সারভার ব্যবহার করতে হবে। যেখানে, এসপি ডটনেট ও এসকিউএল রয়েছে। সাধারনতঃ সব উইনডোজ সারভারই পিএইচপি সাপোর্ট করে।

 ছোট করপোরেট ওয়েবসাইট

ছোট করপোরেট ওয়েবসাইট যেখানে শুধুমাত্র প্রতিষ্ঠানের তথ্যসমুহ এবং কিছু ছবি দিয়ে ওয়েবসাইটটি তৈরী করা হয় সেই সাইটের জন্য দ্রুতগতির এবং ভাল মানের শেয়ার হোস্টিং নিতে পারেন। প্রতিষ্ঠানের তথ্যগুলো খুব কম পরিমানের ভিজিট হয় কিন্তু এটি সামান্য সময়ের জন্যও ডাউন থাকলে প্রতিষ্ঠানের ইমেজের উপরে প্রভাব ফেলবে। করপোরেট ওয়েবসাইটে অনেক সময় জেকোয়েরী, জাভাস্ক্রিপ্ট, ফ্লাস ইত্যাদি কনটেন্ট থাকে তা দ্রুত লোড হওয়ার ব্যাপারে সারভারের ভূমিকা রয়েছে। তাই এই ক্ষেত্রে ব্যান্ডউইথের কথা না ভেবে ভাল মানের দিকে চিন্তা করতে হবে।

সিএমএস

ওয়ার্ডপ্রেস, জুমলাসহ বিভিন্ন কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম বেশ জনপ্রিয়। ওয়েব ডিজাইনের উপরে কম জেনেও অনেকেই থিম ও টেমপ্লেট ইডিট করে করে সুন্দর ওয়েবসাইট বানিয়ে ফেলছে। কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমগুলো এমনভাবে তৈরী হয় যাতে সহজে এদের কোড ইডিট করা যায় এবং একটি পেজের জন্য অনেকগুলো HTTP রিকোয়েস্ট পাঠায়। বিশেষ করে কিছু সিএমএস থিম বা টেমপ্লেটে একাধিক জাভাস্কিপ্ট, সিএসএস, জেকোয়েরী ফাইল কল করায় দেখা যায় প্রতিটি পাতা লোড হতে ১০ থেকে ৫০ টি পর্যন্ত HTTP রিকোয়েস্ট পাঠায়। সারভারের প্রসেসিং ক্ষমতা এবং রেসপন্স টাইম কম হলে সিএমএসগুলো আরো দেরীতে লোড হবে।

 ফাইল সংরক্ষন

যারা অনেক বেশি পরিমানের ফাইল সংরক্ষণ করবেন এবং এগুলো ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য এবং খুব বেশি যা ডাউনলোড করা হবে না, একই সময় খুব বেশি ভিজিটরও হবে না  তারা বেশি স্পেস ও নিচু প্রসেসিং ক্ষমতার ওয়েবসারভার নিলেও সমস্যা হবে না।

ধরা যাক আপনার ২০০ জিবি ব্যক্তিগত ফাইল আছে যা আপনি সংরক্ষণ করতে চাচ্ছেন এবং প্রয়োজন হলেই কাজে লাগাবেন সে ক্ষেত্রে টাকা বাচানোর জন্য কমগতির সার্ভার নিতে এই পরামর্শ দেবো।

ফাইল ডাউনলোড সাইট

সকলের জন্য উম্মুক্ত অনেক বেশি ফাইল ডাউনলোড ওয়েবসাইট বানাতে চাইলে তার জন্য আমার পরামর্শ থাকবে একাধিক সারভার ব্যবহার করা। আপনার সাইটটি হোস্ট করার জন্য খুবই দ্রুত প্রসেসিং করতে পারে এমন একটি সারভার পছন্দ করবেন। আর ফাইলগুলোর জন্য বেশি ব্যান্ডউইথের বেশ কিছু সারভার ব্যবহার করতে পারেন। সারভারের ব্যান্ডউইথ অপচয় রোধে বেশ কিছু পদ্ধতিও অবলম্বন করতে হবে। ( সেটা অবশ্য ওয়েব ডেভলপমেন্ট বিষয়ক পোস্ট- পরবর্তিতে লেখার পরিকল্পনা রইল।)

অডিও ভিডিও স্ট্রিমিং

নিজের সারভারে যারা অডিও ভিডিও স্ট্রিম করতে চান তাদের জন্য ভিন্ন টেকনোলজীর সারভার ব্যবস্থাপনা দরকার হয়। আর সেই সারভার নির্ভর করে একসাথে কতজন স্ট্রিমটি দেখবে বা অডিওটি প্লে করবে।

ভিডিও স্ট্রিমিং টেকনোলজীর সারভার ব্যবস্থাপনার বিষয়ে অনেক বেশি কথা লেখা যায় তবে এখানে  সংক্ষিপ্তভাবে বলছি। স্ট্রিমিং সারভারগুলো একই সাথে অনেকগুলো সারভারের সমন্বিত সারভার ব্যবহার করে এবং স্ট্রিম ভিউয়ার বেশি হওয়ার সাথে সাথে সারভারের লোড অনুসারে সারভারের বিভিন্ন অংশ থেকে স্ট্রিম হতে থাকে। আবার লোড কমার সাথে সাথে গ্রিড রিসোর্স কমিয়ে ফেলে।

যারা ইভেন্টের স্ট্রিমিং করতে চান তারা স্ট্রিমিং সারভার থেকে প্রয়োজন অনুসারে রিসোর্স কিনে ব্যবহার করতে পারেন। আর যারা নিয়মিত স্ট্রিমিং করে করে যাবেন তাদের জন্য ক্লাউড সারভারের পরামর্শ দেবো।

এমএলএম, হাইপ, পিটিসি বা ডাটা ভিত্তিক সফটওয়্যার সাইট

এমএলএম (Multi Level Marketing), হাইপ (High Yield Investment Program), পিটিসি (Pay Per Click) বা প্রাতিষ্ঠানিক সফটওয়্যার যেখানে ডাটা ও নিরাপত্তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ তাদের অবশ্যই ডেডিকেটেড বা ভিপিএস নিতে বলবো।

এমএলএম, হাইপ, পিটিসি সাইটে প্রতিদন্দ্বীরা একে অন্যের সাইটে DDos অ্যাটাক চালাতে পারে। হ্যাকারগণ বিভিন্ন পদ্ধতিতে সারভারের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেস্টা চালাতে পারে, কারন এখানকার প্রতিটি ডাটাই টাকার হিসাবের সাথে জড়িত। আর যে কোন সময় সারভার ডাউন হলে ব্যবসার উপরে প্রভাব পড়বে। ইউজারের সংখ্যার উপরে ভিত্তি করে প্রয়োজনীয় কনফিগারের ডেডিকেটেট সারভার  নিতে হবে। আর DDos আক্রমন প্রতিহত করতে সক্ষম সারভার নিতে হবে।

অত্যাধিক জনপ্রিয় ব্লগ

অনেক জনপ্রিয় ব্লগের ক্ষেত্রে ভিজিটরের উপস্থিতির উপরে ভিত্তি করে ডেডিকেটেড বা ক্লাউড সারভার এবং কনটেন্ট ডেলিভারী নেটওয়ার্কের (CDN) সম্মিলিত ভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। অধিকাংশ ব্লগের তথ্যই মাইএসকিউএল ডাটাবেজে সংরক্ষিত হয় এবং প্রচুর সারভারসাইড কাজ করতে হয় এ জন্য ভাল ক্যাশ মেমরী ও র‌্যামের ওয়েবসারভার কিনতে হবে। ডাটাবেজের জন্য প্রয়োজনে আলাদা সারভারও ব্যবহার করা যেতে পারে।

কোন একটি ওয়েবসাইটের ট্রাফিকের বর্তমান অবস্থা, ওয়েবসাইটের কনটেন্ট এবং ডিজাইন না দেখে অবশ্য হলফ করে বলা যায় না এই সারভারই আপনার প্রয়োজন। ওয়েব হোস্টিং বিষয়ক কোন সহযোগিতার দরকার হলে  টিউটোহোস্ট টিম বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে সহযোগিতা করতে সবসময় প্রস্তুত। বিশেষ করে আমার সাথে ফেসবুক ও ফোনে (+৮৮০১৯১৫৬৩৪৩২৮) যোগাযোগ করতে পারেন। আল্লাহ হাফেজ।

3 thoughts on “কোন ধরনের ওয়েবসাইটের জন্য কোন ধরনের হোস্টিং সারভার প্রয়োজন”

  1. নাফিউর

    অনন্য অসাধারণ। মাহবুব ভাই আপনার ব্লগটি পড়ে হোস্টিং সার্ভার বিষয়ে জ্ঞান আরো বারলো। পোস্টটির জন্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment